ছেলে এবং আমার বিয়ে | নিজের মাকেই বিয়ে করলেন

আমার নাম পুষ্পা এইটা আমার গল্প। আমার বিয়ে হয় এখন থেকে ২৫ বছর আগে যখন আমার বয়স ছিল ২০। এখন আমি এক ছেলের মা। আমার ছেলের নাম রমেশ। সে আমেরিকায় ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছে। গত বছর তার বাবার মৃত্যুর খবর পেয়ে প্রথম বারের মতো দেশে আসে।এটা ছিল কঠিন সময় আমাদর জন্য। আমি ভাবতে পারিনি এভাবে বাঁচা যেতে পারে। কিন্তু এই ঘটনা আমার জিবনকে একে বারেই পরিবর্তন করে দিয়েছে।

রমেশ তার পিতার শ্রাদ্ধের সময় পর্যন্ত আমার সাথেই ছিল। আমরা এখানকার সব সম্পত্তি বিক্রি করে আমার বাবার সাথে থাকার জন্য আমরা গ্রামে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেই। আমি রমেশকে বার বার বুঝাচ্ছি যে আমি ঠিক আছি সে যেন আমেরিকা ফিরে যায়।কিন্তু সে যেতে রাজি নয়।

তার বাবা মৃত্যুর মাসখানক হয়ে গেছে, আমি বুঝতে পারছি রমেশ আমার সাথে অনেক বেশি মেলামেশা করছে। সে সব সময় আমার চাপাশে থাকতে পছন্দ করে আমার শরীরের সাথে লেগে থাকতে এবং আমাকে জড়িয়ে ধরতে পছন্দ করে। আমি ধরে নিলাম ছেলে ময়ে হয় আমার একটু বেশিই যত্ন নিতে চায় এবং সে আসলেই আমার অনেক কেয়ার করতে থাকে।

কিন্তু সপ্তাহ ছয়েক এর মধ্যে আমার বাবা আমার কাছে আসে আমার ভবিষৎ নিয়ে কথা শুরু করে। আমি বাবাকে বলি যে আমার ছেলেই এখন আমার ভবিষৎ।

বাবা আমাকে বলে : তোমার ছেলের ভালর জন্যই তোমার আবার বিয়ে করার উচিত।

আমি বাধা দিয়ে বলি। না বাব আমি আর বিয়ে করতে পারবো না। তুমি এই ব্যপারে আর কথা বাড়িওনা। কিন্তু তার পরেও বাবা আমাকে বোঝাতে থাকে, ব্যখ্যা করতে থাকে কেন আমার সন্তানের ভাল জন্য আমাকে আবার বিয়ে করা দরকার। আমি তখন চিন্তা করলাম এই ব্যপারে রমেশের মতামত কি হতে পারে তা জানা দরকার।

বাবা বলল যে রমেশের সাথে কথা হয়েছে। সে এই প্রস্তাবে রাজি । কেবল রমেশই এই প্রস্তাবের পক্ষে আছে। আমি খুব আহত হলাম যে রমেশ আমার ছেলে আমার বিয়ের জন্য মত দিয়েছে।

আমার ধারনা হলে যে রমেশ হয়তো ভেবেছে আমি তার এই প্রস্তাবে রাজি হয়ে যাব। আমি বাবাকে বললাম ঠিক আছে রমেশ যদি বলে তবে আমি এই প্রস্তাবে রাজি। কিন্তু রমেশ কোথায় আমি তার কাছে জেনে নিতে চাই। বাবা বলল সে বাজারে কিছু সদাই করতে গেছে। আমি বাবার চুখে হাসির ঝিলিক দেখতে পেলাম।

আমি বাবাকে বললাম যাই হোক আমি আর একটু নিজের সাথে বুঝে নেই।যদি এমন কাউকে পাই। বাবা বাধা দিয়ে বলল। আরে না, আমি ইতমধ্যে একজনকে পছন্দ করে ফেলেছি। আমি খুব অবাক হলাম বললাম রমেশ কি তাকে চিনে? বাবা বলল অবশ্যই চিনে।

আমাদের মাঝে তখন নিরবতা চলছে । আমি বুঝতে পারছি না যে আমার ছেলে এবং বাবা কি ভাবে পুনবিয়ের জন্য একমত হচ্ছে। আমি খুব হতাশ হলাম যে তারা ধরে নিয়েছে যে আমি তাদের খুব জ্বালাতন করবো। আমি বাবার কাছে জানতে চাইলাম যে ঠিক আছে বাবা। এখন বল কে সেই ব্যক্তি?

বাবা বলল এটা বলার কিছু নাই, তুমি তাকে ভাল করেই চিন।

 

আমি আমার চার পাশের সম্ভাব্য সব লোক নিয়ে চিন্তা করলাম । কিন্তু বুঝতে পারছি না। আমি বিরক্ত হয়ে বললাম আমি বুঝতে পারছিনা। তুমি বল কে সেই লোক?

বাবা বলল : সে হলো রমেশ।

আমি জানতে চাইলাম কোন রমেশ?

বাবা:তুমি কয়টা রমেশকে চেন?

আমি ভেবে দেখলাম কেবল একটা রমেশকেই চিনি। সে আমার নিজের সন্তান রমেশ।

বাবা: সেই তোমার বর।

আমি ক্ষেপে গেলাম, বাবা এই কথা তুমি আর মুখেও আনবে না।

বাবা বলল আমি তোমার সাথে খামখেয়ালি করছি না, রমেশেই তোমার পতি।

কি????? আমি বললাম রমেশ আমার নিজের ছেলে। ও গড।

কারিনা সে এখন বড় হয়েছে। রমেশে এখন পুরুষ।

কিন্তু সে আমার নিজের রক্তের সন্তান, এটা কি ভাবে সম্ভব? এটা কি হতে পারে?
আমার মাথা ঘুরছে, আমি কিছু চিন্তা করতে পারছি না। বাবা আমাকে বলল রমেশ নিজে থেকেই আমাকে বলেছে যে সে তোমাকে বিয়ে করতে চায়। আমিও প্রথম মনে করেছিলাম যে সে খামখেয়ালি করছে । কিন্তু পরে বুঝলাম যে সে সত্যি সত্যি তা চাইতে পারে।

কি ভাবে সম্ভব? এটা কি বৈধ এবং নৈতিক বিয়ে হবে তার মায়ের জন্য?

এটা হয়তো নৈতিক না। তবে আইনি ভাবে সে একজন বিধবাকে বিয়ে করতে চাইতে পারে। কিন্তু সে আমার নিজের ছেলে, তুমি কিভাবে তার কথায় সম্মত হলে? যদিও তুমি সম্মত হতে পার কিন্তু আমি রাজি না।

এটা অনেক দেরি হয়ে গেছে মামনি, আমি এগ্রমেন্ট সাইন করে ফেলেছি।

এগ্রিমেন্ট? কিসের এগ্রিমেন্ড?

এগ্রিমেন্ট হলো আমি আমার মেয়েকে রমেশের সাথে বিয়ে দেব।

কিন্তু এটা কি করে হতে পারে? আমি তার মা এবং তোমার মেয়ে।

রমেশ তো তার নানার কাছে প্রস্তাব রাখেনি। সে প্রস্তাব বেখেছে একজন বিধবার বাবার সাথে। সে বলেছে সে আমার মেয়েকে ভালবাসে।

আর সাথে সাথে তুমি সই করে দিলে? কি সেই এগ্রিমেন্ট? সে কি বলেছে যে এই হলে সে কিছু ফিরিয়ে দেবে?

বাবা বলল বলেছে।

কি ফিরিয়ে দেবে সে?

বাবা নিরবে বসে আছে। কোন কথা বলছে না। সে কি কিছু টাকা ফিরিয়ে দেয়ার কথা বলেছে?

কেবল টাকার জন্য? তুমি টাকার জন্য তোমার নিজের মেয়েকে বিক্রি করে দিতে পারলে? কত টাকার বিনিময়ে?

বাবা আস্তে করে বলল “১০,০০০ ডলার।

আমি অবাক হলাম। আমি যা শুনছি তা বিশ্বাস করতে পারছি না। এটা তো অনেক টাকা আমি নিশ্চিত হবার জন্য আবার জানতে চাইলাম। সে আবারও দশ হাজার ডলারের কথা বলল । এবং এই বলল রমেশ এর চেয়ে বেশি দিতে রাজি আছে।

আমি নিজেকে গর্বই করলাম যে আমি এখনো ফেললানা হয়ে যাইনি।

বাবা তুমি যদি আরো বেশি নিতে পার তবে নাও। আমি জানি তোমার মেয়েকে বিক্রি করে কোন টাকা পাবে না।

বাবা রেগে বলল তোমার সন্তান বলেছে যদি বিয়ে না হয় তাহলে অগ্রিম টাকাও ফেরত দিতেহবে। আর তুমি তো এখন বিধবাই। এখন থেকে আমনিতেই তো তার সাথে থাকতে হবে। আমি তো তোমাকে অন্য লোকের কাছে বিক্রি করছি না।

কিন্তু এটা কি করে হয় যে তুমি আমার নিজের সন্তানের সাথে আমাক বিয়ে দেবে।

বাবা বলল এতে সমস্যা কোথায়। তুমি তো তাকেই এখন ভালই বাস। এখন থেকে স্বামীর মতো ভালবাসবে তাহলেই তো হল।

আমার চুখে পানি চলে এল। আমি বললা তুমি অনেক নিষ্টুর বাবা, বলে আমার রুমে চলে এলাম।

আমি জানি না আমি কত সময় কেঁদেছি। আমি বুঝতে পেরেছি যে সন্ধা হয়ে গেছে আমি নিচে নেমে আসলাম।

আমি রান্না ঘরে গিয়ে রাতের খাবার তৈরি করতে থাকি কিছু খেয়ে আমি কফি বানতে যাই। আমি বাসায় রমেশ ছাড়া আর কাউকে দেখতে পেলাম না, সে তার রুমেই আছে।

আমি তার জন্যও কফি করে তার রুমে যাই। দরজায় নক করে তার রুমে ঢুকে যাই। সে তার বিছানায় শুয়ে কিছু একটা পড়ছিল । সে আমার দিকে একবার তাকিয়ে অন্য চোখ সরিয়ে নিল।
আমি বললাম: তোমার জন্য কফি এনেছি। সে আমাকে ধন্যবাদ দিয়ে কফি নিল। আমি তার পাশে বসলাম। আমাদের মাঝে কোন কথা হচ্ছে না।

আমি তার দিকে তাকাতে পারছি না। আমি জানি না আমি কি তাকে ঘৃনা করবো নাকি ভালবাসবো।

আমি নিরবতা ভেঙ্গে বললাম: তুমি কি আমাকে কিনতে যাচ্ছে? তোমার নিজের মা কে?

রমেশ তার বই এর দিকে তাকিয়ে বলল: আমি তোমাকে অনেক ভালবাসি মামনি।

এখন এই ভালবাসা দেখাতে কি আমাকে কিনতে হয়েছে?আমি তোমাকে আরো বেশি করে কাছে পেতে চাই মামনি।

আরো কাছে ! মানে তোমার প্রেমিকা হিসেবে চাও?

হুম।

আমি তো তোমার মা, গড তোমাকে ক্ষমা করুক রামেশ। তুমি কি ভাবে এটা চিন্তা করলে?

কারন আমি তোমাকে ভালবাসি।

আমি এবার রাগ দম করলাম। আমি নিরব থেকে কফি খেতে খেতে জানতে চাইলাম। কিন্তু কেন?

রামেশ কিছু সময় নিল। তার পর বলল আমি জানি তুমি হলে আদর্শ মা, আমি তোমার কাছে থাকতে চাই।

কিন্তু তুমি তো আমার সন্তান হিসেবে আমার কাছেই আছ।

তা পারছি এবং তার পরেও কি জানতে চাইবে কেন বিয়ে করতে চাই?

এটা কিবাবে যে তুমি তো আমাকে বিয়ে করতেই পার আমরা এক সাথে তাকতে পারি । আমাদে সন্তান থাকতে পারে আমি সরাজীবন তাদের সাথে থাকতে পারবো।

অবশ্যই আমরা বিয়ে করবো এবং আমাদের সন্তান থাকবে। সাটআপ রামেশ! আমি তোমার মা।
ঠিক এই কারনে আমি তোমাকে বিয়ে করতে চাই। তুমি বলতে চাচ্ছ তুমি আমার প্রেমে পাগল?
রামেশ উদাস হয়ে থাকে। হুম এবং দীর্ঘ দিন ধরে। কত দিন ধরে তোমার বাবার মৃত্যের আগে থেকে? হুম, আরো অনেক আগে থেকে।

কত আগে থেকে দুই বছর?

 

অন্তত পাঁচ বছর আগে থেকে মামনি।

আমি হেচকি খেলাম, আমার নিজের সন্তান আমার প্রতি পাগল পাঁচ বছর ধরে!

তুমি খুব খারাপ রামেশ। কি করে তুমি তোমার মায়ের প্রতি এমন ইচ্ছা করতে পারলে?

কারন আমি তোমাকে ভালবাসি।

সে আর কিছু বলল নাসে তার হাতের কফিটা খেয়ে কাপটা এগিয়ে দিল আমি মগটা নিয়ে বেড়িয়ে আসি।

বিকালটা নিরবেই কাটল। বাবা ফিরে আসল আমরা রাতের খাবার খেয়ে আমাদর রুমে গেলাম কোন কথাই কারো সাথে হলো না।

এই রাতটা আমার জন্য খুব কঠিন কাটল আমি জানিনা কেন কি ভাবে আমি এই সব ব্যপারে জড়িয়ে গেছি।

 

আমি সারারাত এই নিয়ে ভাবলাম। আমি আরো বেশি করে এই বিষয়টা নিয়ে ভাবলাম। নিজের সাথেই এই বিষয়টা নিয়ে কতা বলতে থাকি, আমি ভাবতে থাকি কি সমস্যা হবে রমেশ যদি তার নিজের মায়ের প্রতি অনুরক্ত হয়ে থাকে।এটা কি অন্য কোন মেয়ের প্রতি আসক্ত হওয়ার চেয়ে ভাল নয়?এখন তো সব কিছু পাকা হয়েই আছে । এখনো পর্যন্ত সে তো তার বাবাকে শ্রদ্ধা করছে।

যাক হোক বাস্তব কথা হলো সে আমাকে বিয়ে করার মধ্য দিয়ে তার ইচ্ছা কে পূর্ণ করতে পারছে। সে জানে আমি যদি আগে জেনে যেতাম তবে তার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করতাম। তাই সে আমার বাবাকে দিয়ে প্রস্তাব দিয়েছে তাকে অনেক টাকার লোভ দেখিয়েছে।

লোভি বাবা কি করতে পারে? তার তো টাকার দরকার, টাকা পাওয়ার এমন সহজ পথ কে ছাড়তে চায়। বাবার সারাজীবন এটা দিয়ে হয়তো ভালই চলবে সে তার বিধবা কন্যা নিয়ে জীবন কাটাতই কি ভাবে?

শেষ পর্যন্ত আমার চিন্তাও পজেটিব হলো এটা মনে হয় আমার জন্য খুব খারাপ হবে না আমি যদি রমেশের সাথে বাস করি তবে রমেশকে অন্য নারীর কাছে দিতে হলো না। কেবল একটা জিনিসই করতে হবে তার স্ত্রী হিসেবে বিছানায় যেতে হবে। সে আমার শরীরের গোপন অংশ গুলো যা তার জন্য নিষিদ্ধ ছিল তার অধিকার পেয়ে যাবে। আমি বুঝতে পারছি আমার ব্লাউজ আর শাড়ি ,ছায়া খুলার রাইট আছে।

এই কথা ভাবতে ভাবতে আমার দুই পায়ের মধ্যে একটু চুলকানি শুরু হলো। আমি বিশ্বাসই করতে পারছিলাম যে আমি আমার সন্তানকে চিন্তা করলে আমার উত্তেজনা হবে। সব কিছুই পরিবর্তন হচ্ছে আমার ভাবনাও।

আমি কল্পনা করলাম যে আমার ছেলে আজ আমাকে আদর করছে এই ভেবে গুদে আঙ্গলি করে রাত্রি পার করি। আমি কল্পনাও করতে পারছি না যে আমার স্বামী মারা যাওয়ার ছয় সপ্তাহের ভেতরে আমি অন্য পুরুষের কতা চিন্তা করতে কোন খারাপ লাগছে না।

এর থেকে পাঁচ দিন পর মন্দিরে গিয়ে আমার বিয়ে পর্ব সের আসি।

রামেশ আমার কল্পনায় চলে আসে আমি তাকে তার অবস্থান থেকে চিন্তা করথে থাকি। কিন্তু আমার অনিচ্ছা সত্তেও বাবার কারনে আমি রাজি হতে হলো।

আমি আবার নিজেকে কুমারি মনে করতে থাকি। এটা যেন আমার প্রথম বিয়ে । কুমারির মতো আমি খুব উৎফুল্লা অনুভাব করছি কারন আমি দেখতে পাচ্ছি স্বামী হিসেবে আমার নিজের ছেলেকে। আমি কল্পনা করছে একটা হেন্ডসাম লোক যে কি না ২৩ বছর আগে আমার কাছে থেকেই এসেছে। আমি সিদ্ধান্ত নিলাম আমার ছেলেকে চমকে দিবার জন্য আমার গুপন সম্পদ তাকে দেখতে দিব যা সে আগে কখনো দেখেনি। তাই আমি দরজা বন্ধ করে জামা কাপড় পরিবর্তন করে নিলাম যেন আমার মাথা থেক পা পর্যন্ত ভাল করে আকর্ষনিয় মনে হয়।

বিকাল চারটা সময় গ্রামের স্থানিয় মন্দিরে আমাদের বিয়ে হলো । খুবই অল্প পরিমান মানুষ উপস্থিত ছিল আমি কারো সতেই একটা কথাও বলি নাই তারা আমাদের ভাল করেই চিনে। আমি রমেশের আনা একটা সিল্কি শাড়ি পড়লাম। এটা দেখতে সেই শাড়ির মতো মনে হচ্ছে যখন আমি তার বাবাকে বিয়ের সময় পড়েছিলাম। রমেশ তার বাবার বিয়ের জামা কাপড়ই পড়েছে এই কারনে তাকে দেখতে অনেকটা তার বাবার মতোই মনে হচ্ছে।

যখন ব্রাক্ষমন তার মন্ত্র পাঠ শেষে পুজা করছে এবং শেষে রমেশ আমার গলায় মঙ্গল সুত্র বেঁধে দিচ্ছে। এটা একটা পুলকিত মূহুর্ত আমার নিজের সন্তান আমাকে মঙ্গল সুত্র পড়িয়ে দিচ্ছে। এবং সব শেষ করে সে আমার পাশে বসল।

নতুন বিবাহিত দম্পতিরা যা করে আমরাও তাই করলাম। আমার বাবা তার অভিবাবকের দ্বায়িত্ব পালন করল এখন আমি নিজেই শ্বাশুড়ি এখন আমাকে সন্তানের মা ছাড়াও আরো অধিকার আছে। সন্ধা চয়টার পরেই বিয়ের কাজ শেষ হয়ে যায় সবাই বাবার বাড়িতে বিয়ের খাওয়া খেতে চলে আসে, সবাই আমি এবং রমেশকে স্পেশাল চেয়ারে বসতে দেয়।

প্রথম রাতের ঘটনা।

বেশির ভাগ আত্মীয় স্বজন চলে যাওয়ার পর আমাদের প্রথম রাতের পরবর্তি করনিয় শুরু হয়। এটা যদিও আমার জন্য প্রথম রাত না কিন্তু আমার ছেলের জন্য প্রথম রাত। ইম চিন্তাও করতে পারিনি যে আমার সন্তান যে আমার বুকের দুধ খেয়ে বড় হয়েছে সে আজ আমার স্বামী হিসেবে আমার রুমে আসবে।

সব শেষ করে রমেশ আমার রুমে আসল । কয়েক মিনিট পরে আমার বাবা আমার রুমে একগ্লাস দুধ রেখে গেল।এটা আমার জন্য এক দারুন রাত। আজ আমি আমার নিজের ছেলের সাথে রাত কাটাতে যাচ্ছি। আমি গ্লাসের কিছু দুধ খেয়ে বাকিটা আমার স্বামীর জন্য রেখে দিলাম , আমার সন্তানই আজ আমার স্বামী।

আমি এখন রমেশের রুমে আসলাম। দেখি রমেশ বিছানায় বসে আছে তার চার দিকে ফুল দিয়ে সাজানো দেখে আমার প্রথম বাসরের কথা মনে পড়েগেল।আমি দ্বীধা দন্দের মাঝে হেটে তার কাছে গেলাম সে আমার দিকে এগিয়ে এসে গ্লাসটা নিল এবং বাকি দুধটা পান করেল। সে আর একটু দুধ আমার মুখে তুলে খাইয়ে দিল।

তখন সে বলল ধন্যবাদ মামনি।

 

আমি তাকে বললাম আমি এখন থেকে তোমার স্ত্রী রামেশ, তুমি এখন থেকে আমাকে কারিনা নাম ধরে ডাকবে।সে গ্লাসটা টেবিলে রেখে বলল। তুমি এখনো আমার মামনিই আছ।

 

আমি অসহায় ভাবে বললাম তাহলে তুমি কেন আমাকে বিয়ে করেছ
কারন আমি আমার মামনিকে বিয়ে করতে চাই, আমি আমার মায়ের সাথে আদর সোহাগ করতে চাই, আমি আমার মামনিকে স্ত্রী হিসেবে পেতে চাই।

আমি তার কথা শুনে আরো বেশি কামোত্তিজিত হয়ে উঠি। আমিও তাই চাই। আমিও চাই রামেশ আমাকে অনেক ভালবাসুক। সে আমাকে ছেলের মতোই আদর করুক স্বামীর মতো না।

রামেশ বলল আমাদের বিয়ে আমাদের স্বামী স্ত্রি হিসেবে সবার কাছে পরিচয় করেছে কিন্তু আমরা এখন মা আর ছেলেই আছি, আমি এখনো তোমাকে মা হিসেবে অনেক স্মমান করি তুমি এখনো আমাকে ছেলে হিসেবে শাসন করবে।

আমি বললাম তুমি যদি আমার ছেলেই হও তাহলে আমি কি করে স্বামীকে শাসন করবো?

রামেশ বলল তুমি আমাকে কখনো স্বামী হিসেবে মনে করবে না তুমি আমাকে তোমার ছেলে এবং প্রেমীক হিসেবে মনে করবে, একটা ছেলে যে কিনা তোমার দেহটার প্রেমে পড়েছে। আমি খুব হতাশ হলাম এবং সেই সাথে আম্চাযিতও হরাম। আমি বুজতে পারলাম আসলে রামেশ তার মাকেই তার স্ত্রী হিসেবে চায় । তার বিয়েটা আসলে লোক দেখানো।

রামেশ হাত বাড়িয়ে আমাকে কাছে টেনি নিল এবং জড়িয়ে ধরল সে এমন ভাবে সব সময় আমাকে এভাবে জড়িয়ে ধরে কিন্তু এই সময়টা একটি ভিন্ন । এটা এখন যেন আমার প্রেমিক আমাকে জড়িয়ে ধরেছে।

ধিরে ধিরে সে আমাকে তার কাছে নিয়ে গেল।আমি আনন্দে আত্মহারা। তার পর আস্তে করে তার দেহটার সাথে আমাকে মিশিয়ে নিল। আমি তাকে দেখতে লাগলাম । প্রথমে আমার চুখে তার পর নাকে তার পর আমার ঠোটে সে স্পর্শ করলো।

আমি যেন স্বর্গে আছি। আমার নিজের ছেলে আমার ঠোটে চরম চুমুতে ভরিয়ে দিচ্ছে।তার সে আমার সারা মুখে চুমি দিচ্ছে এবং ঘারের দিকে যাচ্ছে। আমার বুক থেকে আঁচলটা নামিয়ে দিল আমি চুখ বন্ধ করে আছি আমি আমার সন্তানের কাছে প্রথমে নেংটা হতে যাচ্ছি। সে আমাকে চুমু দিয়ে আমার ঘার থেকে নিচে নেমে আমার থুতনিতে।তার পর তার চুমু নিচে নেমে আমার বুকে চলে আসে । আমার বামের দুধে চুমু দিয়ে ডানের টাতে চুমু দেয় দুধের মধ্যে চুমু দেয়।এটা আমার কাছে অবর্ননীয় অভিজ্ঞতা।

তার পর আমার কোমড় থেকে শাড়িটা খুলে নেয় আমি কিছুটা লজ্জা পেলেও রামেশে একে একে সব খুরতে থাকে। শাড়িটা দূরে ছুড়ে ফেলে, আমি আমার চুখ বন্ধ করে দেই আমি যেন আমার ছেলের চুখের সামনে আর দাঁড়িয়ে থাকতে পারছি না।আমার আমার ব্লাউজের উপরে দুই দুধের মধ্যে কিস করে এর পর আমার নগ্ন পেটের চুম দেয় এবং শেষে আমার নাভীতে।

হঠাৎ করে সে আমার সামনে বসে পে এবং আমার ছায়ার উপর দিয়ে গ্রান নিতে থাকে।আমি খুবই অসহায় হয়ে পরি। তার পর রামেশ বলতে থাকে আমি এই ভাবেই অনেক বছর ধরে স্বপ্ন দেখেছি মামনি।

আমি কিছুই বলতে পারছি না সে তার গ্রান নেয়া চালিয়ে যেতে থাকে এক সময় তার হাত আমার পেটিকোটের রিবনে গিয়ে পৌছে।আমি একটা দীর্ঘশ্বাস নেই। আমার মনে হলো সে হয়তো আমার ছায়ার বাঁধনটা কুলতে পারবে না তখন আমি খুলে দেই, যেহেতু আমি তাকে বিয়ে করেছি যদিও সে আমার নিজের ছেলে। তার তো আমার সব কিছুই অধিকার আছে।

আমি ভাবতে ভাবতেই রামেশ আমার কোমড় থেকে ছায়াটা নিচের দিকে নামাতে থাকে । তার হাত এখন আমার কোমড়ে ছায়া খুলার স্বাধীনতা ভোগ করছে হঠাৎ আমার ছায়াটা খুলে নিচে পড়ে যায়। আমি আমার চোখ খুলে আমার ছেলের ভালবাসা দেখতে থাকি। তার হাত এখন আমার নগ্ন দেহে আনাচে কানাচে ঘুরছে। রমেশ এখন নাক দিয়ে আমার বালের ওপর গ্রান নিচ্ছে।

সে তখন আমাকে বলল ধন্যবাম মামনি আমাকে আমার এই ম্নদির দেখানোর জন্য, এই ম্নদিরেই আমি জন্মেছিলাম।

আমি আমার অন্তর থেক তাকে স্বাগত জানালাম। তার পর সে আমার ব্লাউজের হুক খুলে দিল তার প্রতিটা হুক খুলাতেই আমি যেন অন্য রকম কাম অনুভব করছিলাম।

সে এখন আমার ব্লাউজ খুলে দিচ্ছে আমি তাকে চুখ বন্ধ করে সাহায্য করছি। এখন সে আমার পেছনে হাত দিয়ে ব্রা এর হুক খুলে দিল।আমি কখনো এভাবে সম্পুর্ন নেংটা আগে হইনি, কখনো আমার সন্তানের সামনে তো নয়ই, আমার এই নতুন স্বামির সামনেও না এটা আমার জীবনে প্রথম।

সে তখন বলল ধন্যবাদ মামানি তোমার এমন মাতৃদুধ আমাকে দেখানোর জন্য যা খেয়ে আমি বড় হয়েছি।

আমি তার কথা শুনে খুব এক্সাইডেট বোধ করলাম। আমি চিন্তা করলাম সাট আপ এখন তুমি তোমার মায়ের এই দুধ দুইটা প্রমিকের মতো আদর কর।

আমার কথা শুনে আমার ডান দুধের বোটাটা মুখে নিয়ে চুষতে লাগল। যখন থেকেই আমি নিজেকে আমার ছেলের স্ত্রী হিসেবে চিন্তা করে আছি। আমি ভেবেছি ছেলে আমার দুধের বোটা দুটু চুষবে, কিন্তু এখন এর আনন্দ অন্যরকম। যখন আমার ছেলে আমার মাই থেকে দুধ খেত তখন তো এমন আনন্দ হতো না এখন আমার ছেলে আমার স্বামী, আমি এখন দারুন উত্তেজনা অনুভব করছি।

আমার দুধ চুষা , দুধ টেপার শেষ করে সে আমার সামনে দাঁড়াল আমি আস্তে করে আমার চোখ খুললাম আমার ছেলে স্বামী আমার সামনে তার জামা কাপড় খুলতে থাকে । আমি দেখতে পাই আমার ছেলের জামার নিচে তার বাড়াটা লাফাচ্ছে এক সময় ছেলে বাড়াটাকে মুক্ত করে দিল। বাড়াটা অনেক বড় এবং মোটা। তার বাড়টা তার বাবার বাড়া থেকেও বড় আমি চিন্তাও করতে পারিনি আমার ছেলের বাড়াটা এত দিন কত বড় হয়েছে। আমি তো ভেবেছিলাম আমার ছোট সোনামনীর বাড়াটা এখনো একটা মরিচের মতোই আছে। আমি তাকিয়েই আছি। সে আমার কাছে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরল।

আমাদের প্রথম নেংটা হয়ে জড়িয়ে ধরা। আমি তাকে নেংটা অবস্থায় জড়িয়ে ধরেছিলা যখন তার বয়স ছিল ছয় বছর। তখন কার জড়িয়ে ধারার মাঝে এই আনন্দ ছিলনা। এখন তার বাড়াটা আমার তলপেটে খোচা দিচ্ছে এবং তার বুক আমার মাই দুটোকে চেপে আছে।

সে আমার দিকে ফিরে আমার ঠোটে চুমু দিল। যখন আমার ছেলে আমাকে ধরে আস্তে করে বিছানায় শুয়ে দিল এবং আমার উপর গড়িয়ে পল আমার বুক ধরফর করছিল।আমি একটু হলে আরাম করে শুয়ে আছি যাতে সে আমার গুপন সম্পদে হাত রাখতে পারে। আমি যা ভেবেছিলাম তাই হরো। সে আমার উপর শুয়ে আমার দুধ দুটো আটা মাখা করতে লাগলো সেই সাথে তার চুমু তো আছেই।আমার চুখ বন্ধ করার ছাড়া আর কিছু করার নাই।

সে আমার পা দুটো ফাঁক করে আমার দুই পায়ের মধ্যে আসল। আমি তার বাড়াটা আমার গুদের কাছে অনুভব করছিরাম।

তখন সে আমার গুদটা হাতে পেল। আমি বুজতে পারলাম তার ডান হাতটা আমার গুদের উপর আছে আস্তে করে তার হাতের আঙ্গু আমার গুদের উপর ছুয়ে যাচ্ছে।

যখন তার বাড়াটা আমার গুদের পাপড়িতে এসে ঠেকল আমি যেন বিদ্যুত শক খাওয়ার মতো অবস্থা হলো। আমি জিবনে কখনোই এই প্রথম ছোয়ার কথা ভুলতে পারবো না।

এটা যদি আমি আমার প্রথম বাসরের কথার সাথে তুলনা করি তবে বলতে হবে আমার ছেলের বাড়া আমার গুদের স্পর্শটা আমাকে যৌনউত্তেজনার অন্য স্তরে নিয়ে গেছে। যথারিতি তার বাড়াটা আমার গুদের মুখে আছে আস্তে করে ভেতরে ঢুকছে আমার কিছু কই করার নাই আমার নিজের ছেলের বাড়াটা এখন আমার গুদে নেয়ার জন্য পাগল হয়ে আছে।

প্রথম ধাক্কাতেই রমেশ তার বাড়াটা আমার গুদের ভেতরে ডুকিয়ে দিল।আমি এখন গুদের ভেতরে আমার ছেলের বাড়াটা টের পাচ্চি। তার বাড়ার বাল এখন আমার বালের সাথে ঘসা খাচ্ছে। আমার ছেলের বাড়ার বিচি দুটো তালে তালে বাড়ি খাচ্ছে।

আমি ভাবতে থাকলাম এই হলো জীবন চক্র ২৩ বছর আগে এভাবেই তার জন্ম হয়েছিল। ২৩ বছর পর সেই ছেলেই আার গুদে বাড়া ঢুকিয়ে সেই ভাবে সেই পজিশনে কাজ করছে।কিছু সময় নিয়ে সে বাড়াটা ভেতরে ঠেলে দিতে থাকে অবশেষে ছেলে তার মাজে চুদতে থাকে। তার নিজের মা যাকে আজ সে বিয়ে করেছে যার সাথে আজ সে প্রথশ বাসর করছে।

আস্তে আস্তে তার চোদার স্পিড বাড়িয়ে দিচ্ছে , আমি তার চোদার ধরন দেখে খুবই অবাক।এটা একাবারে অভিজ্ঞ পুরুষদের মতো প্রথমে আস্তে তার পর গতি বাড়িয়ে চুদা। সে হয়তো আগে এটা করেছে।

এই সময়ে আমার চারবার জল খসল। আমার কিছুই করার নেই যখন আমি চিন্তা করলাম যে আমার নিজের ছেলে আমাকে চেদাছে, তার বাড়াটা এখন আমার গুদ ভরে আছে, তাখন আর আমার নিয়ন্ত্রন থাকে না।

সে কতক্ষন আমাকে চুদেছে তা বলতে পারবো না আমি উপভোগ করে যাচ্ছি তবে দীর্ঘ সময় যে হয়েছে তা আমাদের দেহ দেখেই বুঝা যায়। সেই চক্র চলছে আমার ছেলে আজ তার বাড়ার ফেদা আমার গুদে ঢেলেছে। আমার গুদ হচ্ছে সেই গুদ যেখানে দুই জেনারেশনের বীর্য পড়েছে, প্রথমে আমার প্রথম স্বামী তার পর আমার নিজের ছেলে।

অভিনয় শেষ। বিয়ের সব কিছুই এখন সম্পন্ন। আমি এখন আর সাধারন মা নই, আমি এখন একজন স্ত্রী লোক। এখন ছেলে মা থেকে স্ত্রীর মাঝের গেপ টা পরুন করে দিয়েছে। একজ স্ত্রীর সব কিছুই করতে হয় যা তার মা করে তাকে কিন্তু স্ত্রীকে তার গুদ দিতে হয় চুদার জন্য , সন্তান জন্মানো রজন্য। এই দিন থেকে ছেলে তার মাকে চুদছে, সে হবে তার স্ত্রী বিয়ে করুক আর নাই করুক।

সব কিছুর পর আমি রামেশকে শ্রদ্ধা করি কারন সে তার মায়ের গুদ চোদার আগে মা তেকে স্ত্রীতে রুপান্তরিত করে নিয়েছে।যদি সে চাইতো তবে আমাকে তার চুদার সঙ্গি হিসেবেও পেতে পারত।সে চাইলে তো আমাকে ফুসলিয়ে রাজি করিয়ে নিতে পারত। এখন আমি তার নিতীগত ভাবে এবং যৌন ভাবে তার স্ত্রী।

আমি এখনো মা ছেলের প্রথ রাত্রির কথা মনে করতে পারি। রমেশ যখন আমার উপর থেকে নামল আমার গুদ থেকে তার ভেজা বাড়াটা বেড়িয়ে গেল। সে আমাকে জিজ্ঞেস করল। তুমার কি ভাল লেগেছে মামানি?

আমার খুব লজ্জা লাগছিল। আমার নিজের ছেলে আমাকে চুদেছে বিয়ের নামে এবং আমার কাছে জানতে চাইছে আমার ভাললেগেছে কিনা? আমি জানি না যদি আমি বলতাম “হ্যা” যা সব স্ত্রীরাই বলে অথবা ” না” যা মায়েরা সব সময় বলে থাকে। সব মিলিয়ে আমার ছেলে আমাকে চুদে মা ছেলে সম্পর্ক আরো মজবুত করেছে যদিও তার কাছে স্বামী স্ত্রী সম্পর্ক গ্রহন যোগ্য নয়। আমিও তাকে আমার প্রেমিক হিসেবেই গ্রহন করেছি, মায়ের প্রেমিক কিন্তু মায়ের স্বামী না।তাই আমি তাকে এসব কিছুই না বলে আমি তাকে জড়িয়ে ধরলাম।

পরের দিন সকালে আমি জেগে উঠলাম এটাকে মনে হচ্ছে যেন এক নিষিদ্ধ স্বর্গ। আমি নেংটা হয়ে আমার নেংটা ছেলের সাথে শুয়ে আছি। আমার বালে বীর্য শক্ত হয়ে লেগে আছে এমন কি কম্বলেও কিছু মাল লেগে আছে।আমি যেন বিশ্বাসই করতে পারছি না যে আমার ছেলে এখন আমার স্বামী।

 

আমরা রাত্রে এক সাথে চোদা চুদি করেছি। আমি বিছানা ছেড়ে উঠে জামা কাপড় খুজতে লাগলাম। সব কিছু সারা ঘরে জুড়ে ছিড়ানো ছিটানো আমার শাড়িটা দরজার কাছে , চায়াটা মেজেতে পড়ে আছে, আমার ব্লাউজ এবং ব্রা বিছানার কাছে পড়ে আছে, আমি কুড়িয়ে নিয়ে সব পড়ে নিলাম।

দরজা খুলে আস্তে করে বাইরে আসলাম , আমি যখন উঠেছি তখন সকাল সাতটা বাজে আমি দ্রিত বাথরুমে চলে গেলাম আমি যখন ফিরে আসলাম বাবা তখন ডাইনিং টেবিলে বসে পেপার পড়ছে। আমাক দেখেই জানতে চাইল কেমন আছি বাসর কনে? আমি হাসি দলাম। তখন বাবা হাসতে হাসতে বলল ” দেখ আমার মেয়ে জামাই ্গত রাতে কত কিছু এনেছে।”

আমি রান্না ঘরে যেতে যেতে বাবা বলল অথবা আমার নাতী তার মাকে এসব উপহার দিয়েছে।
আমার কাছে বিরক্ত লাগল আমি বললাম ” বাবা তুমি কি মনে কর?

কেন নয় , সে কি আমার নাতী নয়? বলে হাসতে লাগল।

 

সে ঠিক আছে । কিন্তু সে তো এখন তোমার মেয়ের জামাই।

তাহলে ভুল বললাম কোথায় যে আমার নাতী তার মাকে এসব দিয়েছে?

আমি লজ্জা পেলাম। বদ্রুপ করে বললাম তুমি কি আমাকে আমার ছেলের সাথে বিয়ে দাওনি?

তুমি কি আমার ছেলের রুমে প্রথম রাত কাটানোর জন্য আমাকে ঠেলে দাওনি? তাহলে এখন কেন বলল ছে আমার ছেলে তার মাকে এসব দিয়েছে? ঠিক আছে তুমি বলে যদি আনন্দ পাও তবে ঠিক আছে। আমার ছেলে আমাকে গত রাতে অনেক আদর করেছে। আমার ছেলে আমাকে গত রাতে তার স্ত্রির মতো চুদেছে,এবং আমরা সারা রাত নেংটা হয়ে কাটিয়েছি।

সব ঠিক আছে, এখন তোমরা কি সুখি?

বাবা এবার সিরিয়াস হয়ে বলল আমি খুব খুশি পামকিন। আমি তোমাকে যাচাই করে দেখলাম।

আমি দুখ অনুভব করলাম। ” আমি দুখিত বাবা আমি এখন মা থেকে স্ত্রী হয়েছি, দুর্ভাগ্য বসত আমাকে দুইটাতে থাকতে হচ্ছে এবং আমি জানি না আমি কি ভাবে সমলাব।

বাবা বলল “সরি ডিয়ার, যদি আমার কাছে জানতে চাও আমি বলল তুমার এখন মা ডাকা থামাতে হবে। তুমার স্ত্রী হয়ে থাকা উচিত, স্ত্রীই বেশি আপন মায়ের চেয়ে, আমি নিশ্চিত রামেশ তোমাকে বিয়ে করেছে স্ত্রী হিসেবে পাওয়ার জন্য মামনি ডাকার জন্য না।সে বিয়ে করার সময় বলেছে তুমি কেবল তার মাই নও আরো বেশি কিছু। সে এখন তোমাকে স্ত্রী হিসেবে চায়।

কিন্তু আমি এখনো তার মামনিই আছি বাবা।

আমি নিশ্চিত তুমি তাই আছ কিন্তু তুমি এখন তাকে বিয়ে করেছ, তুমি এখনতার বৈধ স্ত্রী আমি জানি এটা তোমার জন্য কঠিন যে মাতৃত্ব ছেড়ে দেয়া। কিন্তু তাকে তুমার প্রমিক হিসেবেই গ্রহন করতে হবে।

কিন্তু আমি কি ভাবে আমার দেহটাকে তার সাথে শেয়ার করবো….?

এটা তো পরিস্কার যে রামেশ তোমাকে বিয়ে করার সময় বলেছে যে তোমার দেহটা সে চায়। সব কিছু নিয়ে স্ত্রী রা যা করে সব কিছুই তোমার কাছে একজন মা সিহেবে চাইবে। তাই তার চাওয়া সহজ।ঠিক আছে তোমরা সুখি হও।

আমি বাবাকে থেংকস জানিয় রান্না ঘরে রদিকে গেলাম নাস্তা তৈরি করতে।কয়েক মিনিট পরে রমেশ উঠে বাথরুমে গেল একটু পরে আমি শুনতে পেলাম রমেশ এবং বাবা কথা বলছে । হঠাৎ রামেশ রান্না ঘরে ঢুকে আমাকে পেছন দিক থেকে জড়িয়ে ধরল। আমি চমকে উঠলেও শান্ত থাকলাম। সে আমার কানে কাছে বলল ধন্যবাদ মামনি গত রাতের জন্য বলেই ডাইনিং টেবিলে চলে গেল।

আমার নাস্তা তৈরি করে ডাইনিং টেবিলে গেলাম বাবা এবং রমেশ একে অপরের সামনে বসে আছে বাবা এখনো পেপার পড়ছে। রমেশ আমাকে দেখতে থাকে এবং হটাৎ করেই রমেশ আমার আঁচল ধরে টানতে লাগল । আমি এখন কেবল ব্লাউজ পড়ে দাঁড়িয়ে থাকি কি করে। তাই রামেশকে ধরম দিলাম থাম তো রামেশ।

রামেশ থামল না আমি তাই বাবাকে ডাকলাম। বাবা?

বাবা বলল সে তোমার স্বামী ডিয়ার এখন সে সব কিছুই করতে পারে।

রামেশ বাবাকে বলল: ধন্যবাব নানা জান বলেই আমার আঁচল টানতেই থাকে, আমি শক্ত করে ধরে থাকি। রমেশ ছেড়ে দেয়।

আমি খাবার দিতে থাকি, আর রমেশ আমার দিকে লোভি চুখে তাকিয়ে থাকে, খাবার দিয়েই আমি রান্না ঘরে চলে যাই। আমি ধীরে ধীরে আমার ছেলের স্ত্রী হিসেবে মেনে নেই। কিন্তু আমার ছেলের আচরন আমার প্রতি আগের মতোই থাকে। সে সব সময়ই আমাকে তার মায়ের মতো ভালবাসে কখনো স্ত্রী হিসেবে রাগ করে না। সে কখনো আমার সাথে রাগ করে না ।

ছয় সপ্তাহ পরে রমেশ আমার স্বামী হয় এবং আমি তার দ্বারা গর্ববতী হই। এটা আমাদের দুজনের গুপন মুর্হুতর্ আমার বয়স এখন ৪৪। আমি জানতাম না রমেশ জন্মের পর আমি আবার গর্ববতী হতে পারবো। আমার নিজের সন্তান এখন আমার পেটে। রমেশ আমাকে নিয়ে আমেরিকা চলে যা। বাবা যদিও কিছুটা মন খারাপ করে। আমরা আমেরিকাতে বাবাহিত দম্পতি হিসেবেই প্রবেশ করি।

আমাদের এখন একটি সুন্দর বাচ্চা আছে। এর জন্ম হয় রমেশের বাবার মৃত্যুর দিন।রমেশ আরো একটা সন্তান চায়। বিশ বছর পর আমি আবার যৌন জীবনে ফিরে আসলাম। আমি ভাবতে পারিনি এটা গটবে কিন্তু ঘটল।

আরও পড়ুনমামেয়েকে ধর্ষণের দায়ে জনের যাবজ্জীবন

বন্ধুরা, এই পোস্টে আমরা আপনাকে  পোস্টটি সম্পর্কে বলেছি। আশা করি আপনি এই পোস্টটি পছন্দ করবেন।

আপনার এই পোস্টটি কেমন লেগেছে, মন্তব্য করে আমাদের জানান এবং এই পোস্টে কোনও ত্রুটি থাকলেও আমরা অবশ্যই এটি সংশোধন করে আপডেট করব।

 

Biography, Famous Quotes উক্তি সমূহ লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করো। এই ধরনের লেখার নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি ফলো 

 

ডেইলি নিউজ টাইমস বিডি ডটকম (Dailynewstimesbd.com)এর ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব  ফেসবুক পেইজটি ফলো করুন করুন।

Subscribe to the Daily News Times bd.com YouTube channel and follow the Facebook page.

 

উক্ত আর্টিকেলের উক্তি বাণীসমূগ বিভিন্ন ব্লগ, উইকিপিডিয়া এবং .. রচিত গ্রন্থ থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।

আরও পড়তে পারেনদরজার বাইরে মাকে রেখে মেয়েকে ধর্ষণ করেছিলেন ম্যারাডোনা, দাবি বান্ধবীর

আরও পড়ুনকালিদাস পণ্ডিতের ধাঁধাঁ ১। পর্ব moral stories Kalidas Pondit In Bangla কালিদাস

Read More: মেয়েকে ধর্ষণের দায়ে বাবার যাবজ্জীবন

আরো জানুন >> ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলায় শিক্ষকের যাবজ্জীবন

এখনই কিনুন >> সাত বছরের শিশুকে ধর্ষণের দায়ে বাবার যাবজ্জীবন

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন >> মেয়েকে ধর্ষণের মামলায় পিতার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

জোর করে মাটিতে ফেলে মাকে ধর্ষণ, মোবাইল দিয়ে ছবি তুলল মেয়ে

মেয়ের সামনে মাকে ধর্ষণ, ডিবির এসআই কারাগারে

সৎ মাকে ধর্ষণের চেষ্টা, ছেলে আটক

মাতাল অবস্থায় মাকে ধর্ষণ, ছেলে আটক

মায়ের অবগতিতেই বোনকে বছর ধরে ধর্ষণ!

দ্বিতীয়বারের জন্য মাকে ধর্ষণ করতে গিয়ে গ্রেফতার ছেলে

 

 

তথ্যসূত্র: Wikipedia, Online

Sourc of : Wikipedia, Online Internet

 

 ছবিঃ ইন্টারনেট

দৃষ্টি আকর্ষণ এই সাইটে সাধারণত আমরা নিজস্ব কোনো খবর তৈরী করি না.. আমরা বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবরগুলো সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি.. তাই কোনো খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কতৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। ধন্যবাদ সবাইকে।

ছেলে এবং আমার বিয়ে,নিজের সন্তান সম্ভবা মাকেই বিয়ে করলেন এই তরুণ,নিজের আপন মা’কে বিয়ে করলো ছেলে নিজের চখে না দেখলে বিস্শাস করবেন্না,নিজের গর্ভবতী মাকে বিয়ে করল ছেলে,নিজের ছেলেকে বিয়ে করলেন মা,নিজের ছেলেকে বিয়ে করলো মা,গৃহশিক্ষক কারা গারে ছাত্রীর মাকে ধর্ষণ,ছেলের বিরুদ্ধে মাকে ধর্ষণের অভিযোগ, মধ্যপ্রদেশে নিজের মাকে ধর্ষণ করলো এক নরপশু, মদ খেয়ে মাকে ধর্ষণ, বালুর ঘাটে গ্রেপ্তার যুবক, মাকে ধর্ষণ ছেলের মাকে ধর্ষণের দায়ে ছেলে গ্রেফতার ,মাকে ধর্ষণের দায়ে ছেলের যাবজ্জীবন ,মেয়েকে বাবা!,সৎ মাকে ধর্ষণের চেষ্টা,স্বামীর মৃত্যুর পর নিজের ছেলেকে বিয়ে করল মা!,স্বামীকে ছেড়ে ১৫ বছরের ছোট নিজের ছেলেকে বিয়ে করলেন মা,নিজের মেয়েকে যে কারণে বিয়ে করলেন বাবা! জানলে অবাক হবেন আপনিও!,নিজের ছেলের বউকে পালিয়ে নিয়ে বিয়ে করলো শশুর

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »