বাবা কালেক্টরি অফিসে সাইন করানোর জন্য যেত..আজ সেই অফিসে মেয়ে কালেক্টর, গর্বে চোখে জল বাবার

আমাদের সকলকেই কোন না কোন কাজে কোনো না কোনো সময়ে সরকারি অফিসে যেতে হয়। কখনো কোনো নথি তৈরি করতে বা কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র সই করাতে। কাজটি শেষ করে তাদের বড় কর্মকর্তাদের কাছে জমা দিতে হয়। প্রথমে ছোট আধিকারিকরা এবং তারপরে বড় আধিকারিকরা কিছু কাগজপত্র তৈরি করতে বিভিন্ন পর্যায়ে গিয়ে এই প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে হয়।
…….
ডিজিটাল ইন্ডিয়া কথাটি বলা হলেও নিরক্ষরতা এবং অজ্ঞতার কারণে মানুষ এখনও তাদের কাজের জন্য গ্রামে বাস করেন। আজ আমরা কথা বলবো অফিসের চারিদিকে ঘুরতে আসা এক ব্যক্তির কন্যা রহিনির। তিনি শৈশবে তার পিতাকে কালেক্টরি অফিস এ আক্রান্ত হতে দেখে ছিলেন এবং তিনি স্থির করেছিলেন যে তিনি বড় হয়ে এর বিচার করবেন।

আজ ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে একটা ধর্ষিতা মেয়েকে বিয়ে করলাম।

সংগ্রাহক হতে এবং তার বাবার মতন অসহায় মানুষকে সহায়তা করো করে তিনি তার সংকল্প টি বাস্তবায়িত করলেন। আইএএস অফিসার হয়ে সবার জন্য রোল মডেল তৈরি হলেন রোহিণী। রহিনি মহারাষ্ট্র সলাপুর এর উপরই নামে একটি ছোট্ট গ্রামে থাকেন এবং তার বাবা কৃষক ছিলেন। তিনি গ্রাম থেকে গিয়ে সেখানকার সরকারি স্কুল থেকে দশম শ্রেণী পাস করেন।

তারপরে তিনি দ্বাদশ শ্রেণীতে পড়াশোনা করতে সোলাপুর যান।তিনি খুব ভালো ছাত্রী ছিলেন তিনি স্কুলের শীর্ষ স্থান অধিকারী ছিলেন। তারপরে কঠোর পরিশ্রম করে সরকারি কলেজের ইঞ্জিনিয়ারিং এ ভর্তি হন এবং ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াশোনা শেষ করে। এরপরই তিনি প্রশাসনিক চাকরিতে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন এবং ইউপিএসসি এর জন্য প্রস্তুতি শুরু করেন। রহিনি কারো সাহায্য ছাড়াই নিজে থেকেই পরীক্ষার্থীর প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

১০ কোটি রুপি নিয়ে আসবেন, এক রাত আমি আপনার: ঐশ্বরিয়া

তিনি কোন কোচিং এ যোগ দেননি।তিনি কেবল তার পড়াশোনা চালিয়ে যান এবং তারপরে কারো সাহায্য ছাড়াই আইএএস হন। তিনি বলেছিলেন যে সরকারি বিদ্যালয় ভালো শিক্ষকের অভাব নেই তবে মৌলিক সুযোগ সুবিধার অভাব রয়েছে। এই ব্যাপারটির রোহিনী যখন মাত্র নয় বছর বয়সের তখনই উপলব্ধি করেছিলেন। সেই সময়ে সরকার কৃষকদের জন্য কিছু নতুন প্রকল্প চালু করেছিল।

তার বাবা এই সরকারই স্কিমগুলি সুবিধা পেতে আবেদন করতে চেয়ে ছিলেন তাই তিনি বারবার সরকারি দপ্তরে যেতেন। কিন্তু সেখান থেকে বারবারই তিনি হতাশ হয়ে ফিরে আসছেন। তার বাবাকে এ রকম হতাশ হয়ে থাকতে দেখে রহিনি তাকে তার সমস্যা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলেন। তারপরে তার বাবা বলেছিলেন যে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ নথি তৈরি করার জন্য তার সংগ্রাহকের স্বাক্ষর দরকার।

এই কারণে তিনি বারবার অফিসে যাচ্ছেন। তুমি যখন তার বাবার কাছ থেকে শুনলাম যে তার পিতা কালেক্টরের স্বাক্ষরের জন্য এত বেশি ঘুরাফেরা করছেন তখন তিনি অত্যন্ত দুঃখ পেয়েছিলেন। তখনই তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে তিনি বড় হয়ে একজন সংগ্রাহক হবেন এবং তার পিতার মতন সমস্ত লোককে সাহায্য করবেন।

হিজাবকে নিপীড়নের প্রতীক দাবি করে বিতর্ক উস্কে দিলেন তসলিমা

উপরের ঘটনা 23 বছর পরে তিনি এই সংকল্প কে বাস্তবায়িত করলেন। তিনি তামিলনাড়ু রাজ্যের সালেম জেলার 170 জন পুরুষ সংগ্রাহকের পরে প্রথম মহিলা সংগ্রাহক হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন। রহিনি বলেছেন যে তিনি আইএএস প্রশিক্ষণ নেওয়ার সময় তার বাবা তাকে বুঝিয়ে দিতেন যে তার মেয়ে এখন অনেক বড়, তাকে দায়বদ্ধতা পরিচালনা করতে হবে।

সমস্ত ফাইল গুলি ও তার টেবিলে আসবেন তবে আপনার সাথে ফাইল সাধারণ কাগজের মত না দেখে রেখে দেওয়া উচিত নয়। আপনার একটি স্বাক্ষর লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে পারে। সর্বদা মানুষের মঙ্গল সম্পর্কে চিন্তা করে কাজ করুন। রহিনি বলে যে আমার বাবা দুই একর জমিতে কাজ করতেন। তিনি কৃষিকাজ ও ফলনের জন্য জমি সম্পর্কে খুব উদ্বিগ্ন ছিলেন কারণ তিনি কোনো কর্মকর্তার সাহায্য নিতে পারেননি।

তিনি রোহিণীকে বলতেন যে জেলা কালেক্টরের সমস্যা বিবেচনা করে তারা যদি চান তবে তারা তাদের সাথে কাজ করবেন নচেৎ নয়। তাই তিনি রোহিণীকে তার দায়িত্ব পালনের এবং গরীব ও দরিদ্রদের সাহায্য করার নির্দেশনা দিয়েছিলেন। রোহিণী তার বাবার আদেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করেছে। রহিনি তার জেলার প্রথম মহিলা সংগ্রাহক হয়েছিলেন তাই তিনি নারীর ক্ষমতায়নের দিকে মনোনিবেশ করেছেন।

তিনি তার বাবাকে মাথায় রেখেছেন এবং তার দায়িত্ব গুলি ভালোভাবে পালন করছেন। এর আগে তিনি মাদুরাইয়ের জেলা পল্লী উন্নয়ন সংস্থায় অতিরিক্ত কালেক্টর এবং প্রকল্প অফিসার হিসেবে নিযুক্ত।তিনি মাদুরাই জেলায় বাস করেন এবং 32 বছরে তাকে ছিলাম এর সামাজিক পরিচালকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। তিনি তার কাজ এবং নম্র আচরণ এর দ্বারা সকলের মন জয় করেছেন।

স্কুল ড্রেস মানব না, আইন মানব না, এর নাম মজলুম? খুবই আজব মডারেট মুমিন আপনি।

তিনি তার কাজ চিন্তা এবং সম্পূর্ণ বুঝে করেন।এই মুহূর্তে তিনি সালেম জেলায় থাকেন এবং সেখানকার বিদ্যালয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য সচেতনতা মূলক প্রচার চালাচ্ছেন। তার বাবা সরকারি কাজের জন্য যে সমস্যার মুখোমুখি হয়েছিলেন তা আর অন্য কেউ ভোগ করুক তা তিনি চাননি তাই একজন নাগরিক হিসেবে তিনি তার কাজগুলো নিষ্ঠার সাথে পরিচালনা করছেন। কোন সাহায্য ছাড়াই আইএএস হয় এবং তার দায়িত্ব গুলি ভালোভাবে পালন করে তিনি সবার জন্য মডেল স্থাপন করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »