মাত্র ৭ হাজার টাকায় ঝকঝকে নতুন মোটরসাইকেল, দারুন সুযোগ দিচ্ছে Bajaj

মোটসাইকেল প্রেমিকদের জন্য এবার এলো বড় এক সুখবর। মোটরসাইকেল কেনার আগে বেশি মাইলেজের বাইকের চাহিদা বরাবরই বেশি থাকে বাজারে। প্রতিবেশি দেশ ভারতের বাজারেও এখন বেশি মাইলেজ দেওয়া মোটরবাইকের চাহিদা সব থেকে বেশি। পেট্রোলের দাম প্রতিদিন বাড়ছে। এমন পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষ ভাল মাইলেজ দেওয়া বাইক নেওয়ার দিকে নজর দেয় বেশি এবং সেই বাইকের চাহিদাও থাকে তুঙ্গে।। আর এই সেগমেন্ট-এ বাজাজ প্ল্যাটিনা ১১০ সিসির জুড়ি মেলা ভার। বরাবরই বাজাজ-এর বেস্ট সেলিং মোটরসাইকেল ছিল প্ল্যাটিনা। আজ আমরা আপনাদের জানাবো ভারতের বাজারে বাজাজ প্ল্যাটিনা ১১০ সিসি মোটরবাইকের বিস্তারিত জানাবো। প্রতিবেশি দেশটিতে পেট্রোলের দাম ১০০ পার করতে যেন আরও বেশি সংখ্যক মানুষ প্ল্যাটিনা কেনার জন্য আগ্রহ দেখাচ্ছেন। ভারতের বাজারে এই মোটরবাইকের এক্স শোরম মূল্য ৬৫,৯৩০ টাকা। তবে কেউ চাইলে মাত্র ৭,৬৫৭ টাকা দিয়ে আজই এই মডেল বাড়িতে নিয়ে আসার সুযোগ রয়েছে। ভারতের বাজারে এই সুযোগ করে দিয়েছে Bajaj।

 

 

 

ব্যাঙ্ক ৩৬ মাসের জন্য লোন দিচ্ছে-

ভারতে এই মোটরসাইকেলের উপর ৬৮,৯১২ টাকা লোন পাওয়া যাচ্ছে। ডাউন পেমেন্ট করতে হচ্ছে মাত্র ৭৬৫৭ টাকা। আইএস প্লান- এর অধীনে ব্যাংক ৩৬ মাসের মেয়াদে লোন দিচ্ছে। প্রতি মাসে আপনাকে ২৪৫৯ টাকা করে ইএমআই বাবদ দিতে হবে। ৯.৭ শতাংশের হিসাবে সুদ দেওয়া সুবিধা থাকছে।

 

১১৫.৪৫ সিসি সিঙ্গল সিলিন্ডার ইঞ্জিন-

 

 

 

 

..

বাজাজ প্ল্যাটিনা 110 সেগমেন্টের প্রথম মোটরসাইকেল যাতে আপনি অ্যান্টিলকিং ব্রেকিং সিস্টেম বা এবিএস পাবেন। এই মডেলে 115.45 সিসি সিঙ্গল সিলিন্ডার ইঞ্জিন দেওয়া হয়েছে। এই ইঞ্জিনে এয়ার কুল্ড প্রযুক্তি রয়েছে। এই ইঞ্জিন 8.6 পিএস পাওয়ার এবং 9.81 এনএম পিক টর্ক জেনারেট করে। প্ল্যাটিনা ১১০ এবিএসে ফাইভ-স্পিড গিয়ারবক্স থাকবে। একইসঙ্গে এই বাইকে দেওয়া হয়েছে একটি 5-স্পিড গিয়ারবক্সও।

 

১১০ কোটি ডলারের টেসলার শেয়ার বিক্রি করলেন ইলন মাস্ক

 

সিঙ্গল-চ্যানেল ABS-

 

এই মোটরসাইকেল এ রিয়ার টায়ারে ডিস্ক ব্রেক রয়েছে। রয়েছে সিঙ্গল-চ্যানেল ABS। তবে এই মডেল সব থেকে বেশি বিক্রি হয় ভাল মাইলেজ দেওয়ার জন্য। বাজাজ দাবি করছে, প্ল্যাটিনা ১১০ এক লিটার পেট্রোলে ৮৪ কিমি পর্যন্ত মাইলেজ দিতে পারে। তবে মাইলেজ ভাল পাওয়াটা অনেক কিছুর উপর নির্ভর করে। এক্ষেত্রে গাড়ি সময়মতো সার্ভিস করাটা সব থেকে বড় ব্যাপার। এছাড়া আপনি ঠিক কেমন রাস্তায় চালাচ্ছেন, সেটাও বড় দিক। তাছাড়া গাড়ি প্রতিনিয়ত মেইন্টেন করে রাখতে হবে।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »